সাবরিনা জেবিন সেঁজুতি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়(DU)


কেন্দ্রবিন্দু একাডেমিক কেয়ার না, আমি বরং কেন্দ্রবিন্দু পরিবার বলতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। একাডেমিক কেয়ার থেকে পরিবার হওয়ার গল্পটা বলি।
এসএসসি র পর বেশিরভাগ বন্ধুরাই ঢাকা চলে যায়। তখন ঢাকার কোন কলেজে ভর্তি হতে না পারার একটা আফসোস ছিল। কিন্তু কেন্দ্রবিন্দুতে কয়েকদিন ক্লাস করার পর সে আফসোসটা আর রইল না। ক্লাস করাতো সব পাবলিক ভার্সিটিতে পড়ুয়া ভাইয়ারা। ঢাকা থাকলে ভার্সিটির ভাইয়া-আপুদের যে গাইডলাইন পেতাম তা ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকেই পাচ্ছিলাম কেন্দ্রবিন্দুর জন্য। নিয়মিত ক্লাস, ক্লাস টেস্ট ,এসাইনমেন্ট সবকিছু নিয়ে পড়াশোনার একটা ভালো গতি চলে এসেছিল। তবে এত পড়াশোনার চাপে যখন হাঁপিয়ে উঠতাম, তখন কেন্দ্রবিন্দুর ছোট ছোট অনুষ্ঠানে ভাইয়াদের কন্ঠে গান বা সহপাঠীদের বলা কবিতা, গানে মন আবারো তাজা হয়ে উঠত।
কেন্দ্রবিন্দু থেকে পাওয়া সবচেয়ে বড় প্রেরণার মাধ্যমটা ছিলো ‘”ভার্সিটির ট্যুর”। ঢাবি, বুয়েট ,মেডিকেল, জাবি ভার্সিটিগুলো ঘুরে দেখা আমার জীবনের প্রথম ছিল। ভার্সিটিগুলো ঘুরে ভার্সিটিতে পড়ার যে স্বপ্নটা ছিল তা আরো দৃঢ় হল। HSC সিলেবাস শেষ হওয়ার পরেই শুরু হয়েছিল মডেল টেস্ট আর সলভ ক্লাসের নতুন অধ্যায়। মডেল টেস্টটা ছিল মোটামুটি একটা মিনি এইচএসসি পরীক্ষা। দেখতে দেখতে এইচএসসি পরীক্ষা চলে আসলো, বিদায় অনুষ্ঠানের দিন মনে হয়েছিল যে মানুষগুলো আমাদের জন্য গত দুই বছর যে পরিশ্রম করেছে তাদের জন্য হলেও ভালো কিছু করতে হবে। HSC লাইফের দুই বছর একটা পরিবারের মতই কেন্দ্রবিন্দু গাইড করেছে। সমস্যাগুলো শুনেছে,বুঝেছে ,সমাধান দিয়েছে, হতাশ হলে সাহস দিয়েছে ,প্রেরণার এই ধারা চলতে থাকুক , ভালো থাকুক কেন্দ্রবিন্দু পরিবার…
সাবরিনা জেবিন সেঁজুতি
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *